বনসাই নিয়ে প্রশ্ন -উত্তর

About Admin

Admin
আমি ইশতিয়াক এই WebSite এর Admin Officer আমি মূলত একজন IT Expert, তবে একই সাথে Photography এবং গাছপালা লাগানোর প্রতিও আমার সমান আগ্রহ আর সেই আগ্রহ থেকেই এবং গ্রাম বাংলার কৃষক এবং শহরের মানুষকে এই বিষয়ে আগ্রহী করে তোলার জন্যেই মূলত আমার এই WebSite টির পরিকল্পনা করা। আশাকরি আপনাদের সবার অনুপ্রেরনা এবং সমর্থন আমার সাথে থাকবে। ধন্যবাদ সবাইকে
Print Print
Pin It

 

বনসাই বাংলাদেশে  নতুন না হলেও এখনো অনেকের কাছেই এটি একটি অজানা শিল্প  -অন্তত বনসাই কিভাবে করতে হয়,কিভাবে এর যত্ন নিতে হয় ইত্যাদি নানা প্রশ্ন আমরা যারা বনসাই শিল্পী বা বনসাই বিক্রেতা তাদের শুনতে হয় এবং উত্তর দিতে হয়,মেঠোপথের ইনবক্স এবং কমেন্টস এ অনেকেই নানা সময় আমাদের কাছে এই নিয়ে জানতে চেয়েছেন,তাদের জন্যেই  এই পোস্ট,এই পোস্ট একটি চলমান পোস্ট হবে,অর্থাৎ নানা সময় এতে সমস্যা গুলো আপডেট করা হবে -তাই যারা বনসাই নিয়ে জানতে চান,বা এক্সপার্ট রয়েছেন তারা এই পোস্টটি বুকমার্ক করে রাখতে পারেন,আমাদের আপনারা প্রশ্ন করতে পারেন,আমরা সাধ্যমতো  উত্তর দিবো,এছাড়া আমাদের কোনো ভুল হলে সেটি শুধরে দিবেন,কারণ এখানে আমি আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতার আলোকেই মতামত দিবো ,তাই ভুল থাকা বা পদ্ধতিগত ভুল থাকতেই  পারে,গঠন মূলক পরামর্শই পারে আমাদের সবাইকে সঠিক জ্ঞান দিতে-ধন্যবাদ 

বনসাই নিয়ে প্রশ্ন -উত্তর

প্রশ্ন ১ -কেমন  গাছ বনসাইয়ের জন্যে উপযোগী?

উত্তর-যেসব গাছ কষ্ট সহিষ্ণু ,আমাদের আবহাওয়ায় সহজেই বেঁচে থাকতে পারে,বহু বছর বেঁচে থাকে এবং দ্বিবীজপত্রী -সেসব গাছ দিয়ে বনসাই করা হয়। তবে সব দ্বিবীজপত্রী দিয়েই যে বনসাই করা হয় বা যায় তা নয়।

বনসাই এর জন্যে গাছ কিভাবে বাছাই  করবেন তার কিছু প্রাথমিক ধারণা

~বহুবর্ষজীবি
~কষ্ট সহিষ্ণু
~ফল ও পাতার আকৃতি ছোট
~ডাই-ব্যাক

প্রশ্ন ২  -ডাই-ব্যাক (die-back) কি? 

উত্তর-কিছু গাছ আছে যেগুলোর ডাল  অনেক সময় মরে  যেতে থাকে,সাধারণত ডাই-ব্যাক  এটাকেই বলে,কৃষ্ণচূড়া /রাধাচূড়া ,আম গাছে এই সমস্যা দেখা যায় ,এছাড়া আম এতো বড়  যে ফলের ওজনে বনসাইয়ের shape  নষ্ট হয়ে যায় ।

প্রশ্ন ৩  -বনসাইয়ের মূল শিকড় কি কাটতে হয়? 

উত্তর-শিকড় নিয়ে অনেকের প্রশ্ন  থাকে,বিশেষ করে যারা নতুন বনসাই শিল্পী তাদের একটি প্রবণতা থাকে শিকড় মোটা করার,এটি অবশ্যই দরকার কিন্তু বুঝতে হবে কোন শিকড় বড়  করবেন আর কোনটি নয়,বনসাইয়ের একটি মূল বিষয় হচ্ছে আপনি যে front  ঠিক করবেন সেখানে  এমন কোনো ডাল বা শিকড় থাকবে না যা দৃষ্টি কেড়ে নিবে ,সেক্ষেত্রে অপরিকল্পিত মোটা শিকড় সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে ।তাই অবশ্যই শিকড় মোটা করার সময় সঠিক ভাবে বাছাই করতে হবে।

 

17201419_1256081671105758_9151679499132335565_nবনসাইয়ের  শিকড় ছাঁটাই বনসাইয়ের  শিকড় ছাঁটাই বনসাইয়ের  শিকড় ছাঁটাই

 

শিকড় ছাঁটাই এ আরেকটি লাভ হচ্ছে এতে দুর্বল শিকড়গুলো সঠিক পুষ্টি পাবে,যা সমভাবে গাছে ছড়িয়ে দিবে,একটি জিনিস লক্ষণীয় মোটা শিকড় অনেক সময় একমুখী পুষ্টি সরবরাহ করে,ফলে গাছের বৃদ্ধি বা মোটাকরণ প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত হয়।   (ছবি দিয়ে  পরবর্তী সময়ে আরো ভালোভাবে বুঝানোর চেষ্টা করবো )

এবার আশা যাক মূল শিকড়ের বিষয়ে-ইচ্ছা করেই এটি একটু পরে আলোচনায় নিয়ে এলাম,কারণ অনেক সময় বীজ  থেকে/ ডাল  থেকে/নার্সারি থেকে চারা  এনে তা দিয়ে বনসাই এর কাজ শুরু করা হয়,অথবা একজন নতুন বনসাই শিল্পী মূল শিকড় চিনতে পারেননা বা কাটার সাহস পান না অথবা ওই সিজনে হয়তো কাটা উচিতও নয়-ইত্যাদি নানা কারণেই মূল শিকড় কাটতে ১/২ বছরে সুযোগ হয়ে ওঠে না, কিন্তু শাখা শিকড় সহজেই চেনা যায় এবং সেগুলোর বিন্যাস করাটাও খুব জরুরি,অন্তত সেটা নিয়মিত যাতে করে যান সেটি বুঝাতেই  আগে শাখা শিকড় নিয়ে আলোচনা করেছি।

মূল ও  শাখা শিকড়ের কাজ

মূল শিকড় 

~গাছের বৃদ্ধি করে
~মাটির গভীরে গিয়ে গাছকে মাটিতে দাঁড়িয়ে থাকতে সাহায্য করে

শাখা শিকড়

~মাটি থেকে পুষ্টি সংগ্রহ করে পুরো গাছে সরবরাহ করে

তাহলে বুঝতেই পারছেন  শিকড় নিয়ে কেন শুরু থেকেই ভাবনা চিন্তা করতে হবে?আমি নিজেও এই ভুলগুলো করেছি,যে কারণে এতো বছরেও খুব বেশি মানসম্পন্ন বনসাই করা আমার হয়ে ওঠেনি  :(

প্রশ্ন ৪ -বনসাই এ উপযুক্ত গাছ কোনগুলো?

উত্তর-দেশি ও চাইনীজ বট,পাকুড়, বকুল, শিমুল, তেতুল, বাবলা, পলাশ, ছাতিম, হিজল, জাম,  বেলি, গাব, শেফালী,চাইনীজ পেয়ারা(ছোট পাতা ), ডালিম, তমাল, কমলা, বহেরা, বরই, কামিনী, মেহেদী, কড়ই, অর্জুন, জারুল, করমচা, কদবেল, দেবদারু, হরিতকি, সাইকেশ, কামরাঙ্গা, আমলকি, কৃষ্ণচূড়া (ডাল খুব শক্ত,সহজে আকৃতি দেয়া যায় না,তবে ফুলের জন্যে অনেকে করে ), জবা, অশ্বথ, নুডাবট, কাঁঠালি বট(পাতা খুব বড়,শুরুতে এটা নিয়ে কাজ না করা ভালো ), রঙ্গন, লাল গোলাপ, কনকচাপা, বাগান বিলাস, লাল জামরুল, আলমন্ডা এই গাছ গুলো বনসাই করার জন্যে খুবই উপযোগী।আর যে গাছটির বনসাই তৈরি করবেন অবশ্যই সেটার প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য আগে  জেনে নিবেন ।নির্বাচিত গাছের বিচি অথবা নার্সারী থেকে চারা সংগ্রহ করতে পারেন ।

প্রশ্ন ৫ -পানি বেশি জমে গেলে কি করবো?

উত্তর-নিচে ছোট ইট দিয়ে একটু বাঁকা করে রাখেন,যাতে পানি না জমে ,আর যখন গাছ লাগাবেন,সেটা বনসাই -ই হোক বা নাই হোক,টবের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা যাতে ঠিক থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখা খুব দরকার,কারণ অতিরিক্ত অথবা অপর্যাপ্ত পানি-দুটোই গাছের জন্যে ক্ষতির কারণ,তাই গাছে পানি দেবার বিষয়ে শুরুতেই সতর্ক থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যায়।

 

 

1720 Total Views 8 Views Today