গো খাদ্য

স্বল্প খরচে নিজেই তৈরী করুন গো খাদ্য

About shopno dairy

shopno dairy
Print Print
Pin It

গো-খাদ্যের জন্য বিভিন্ন কোম্পানীর বেশী দামী দানাদার ফিড আর নয়। খাবার এবার নিজেরাই তৈরী করবেন। ব্যবসা করতে হবে লাভের জন্য,  শখের বসে আমরা অনেক ব্যবসাই করে থাকি। কিন্তু লোকসান দিয়ে আর ব্যবসা নয়। আমার আজকের লেখা নতুনদের জন্য যারা বাজার থেকে বিভিন্ন কোম্পানির দানাদার ফিড কিনে খাওয়াচ্ছেন। এই কোম্পানীগুলো তাদের তৈরী ফিড বাজারে ৩৫-৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করে। আর বাজারে আমরা দুধ বিক্রি করি ৩৫ টাকা কেজি। আমরা এই ডেইরী ফার্মাররা এমন এক গেড়াকলে যাদের দেখার আর সহায়তা দেবার কেউ নেই। অথচ আমাদের মাথায় কাঠাল ভেংগে এই ফিড ব্যবসায়ীরা  কোটি কোটি টাকা আয় করছে। কেউ এসে এই কোম্পনীদের জিজ্ঞেস করবেনা আপনারা এত দামে কেন ফিড বিক্রি করছেন। লোকসানের পর লোকসান দিয়েই গরীব চাষীরা জীবন জীবিকার জন্য যুগের পর যুগ চালিয়ে যাচ্ছে তাদের কার্যক্রম। এখন সময় এসেছে এসব থেকে বের হয়ে আসার। আমরা শিক্ষিত চাষীরা এই গরীব চাষীদের সাথে নিয়ে একটি সুন্দর দেশ গড়ার প্রত্যয়ে সবাই একসাথে এগিয়ে যাবার। তাই বিভিন্ন কোম্পানীর কেনা ফিড না খাইয়ে কি কি উপাদান দিয়ে গো-খাদ্য আপনি নিজেই তৈরী করতে পারেন তা নিয়ে কিছু লেখার চেষ্টা করেছি। আমি একটা কথা আগেও বলেছি, এখন ও বলছি এই পথে আমি নতুন, অনেক ভুলভ্রান্তি হতে পারে। দয়া করে ক্ষমা সুন্দর ভাবে দেখবেন।

কি কি উপাদান দিয়ে তৈরী করবেন সাশ্রয়ী গো খাদ্য

গো-খাদ্যের জন্য যে যে খাবার গুলো প্রধানত গুরুত্বপূর্ণ তা হল: গমের ভূষি, ছোলার ভুষি, খেসারী ভুষি, কুড়া, ভুট্টা, সরিষার খৈল, তিলের খৈল, চালের খুদ, চিটাগুড় বা মোলাসেস, ঘাস, খড় ও ক্যালসিয়াম/ভিটামিন। এই উপাদান গুলো দিয়ে সাধারনত আমরা কি কি উপাদান দিয়ে তৈরী করবেন সাশ্রয়ী গো খাদ্য তৈরী করে থাকি।তবে সব গুলো উপাদানই যে দিতে হবে তা না। তবে ৪-৫ টা দানাদার উপাদান মিশিয়ে সাথে ক্যালসিয়াম/ ভিটামিন দিলে আমার মনে হয় ভাল একটা খাবার ম্যানু নিজেরাই বানিয়ে নিতে পারেন।এতে আপনার কেজি প্রতি খাবার খরচ সর্বোচ্চ  ২২-২৫ টাকার মধ্যে হয়ে যাবে। এখন অনেকের মনে প্রশ্ন কোন কোন উপাদান দিলে ভাল হয়। কথা হচ্ছে ভালোর কোন শেষ নাই। অনেক ভাল দামী খাবার দেয়া যেতে পারে, আপনিও দিবেন যখন আপনার ফার্ম একটা অবস্থানে চলে আসবে। যারা নতুন তাদের অনেক ভেবে চিন্তে আগাতে হয়, এত চিন্তা একটা সুসংগঠিত বড় ফার্ম এর দরকার হয়না বিভিন্ন কারনে। আমরা যেমন ছোটকাল থেকে যে খাবারে অভ্যস্ত, বড় হয়েও কিন্তু তাই বেশী বেশী খাই। এই যেমন আমার কথাই ধরেন, ফার্স্ট ফুড আমার পেটে একেবারেই সহ্য হয়না, খেলেই পেটে সমস্যা দেখা দেয় । কারন আমি ছোটকাল থেকে এই খাবারে অভ্যস্ত নই। কিন্তু আজকালকার বাচ্চাদের দেখেন ওরা সারাদিন ফাস্টফুড খেয়ে যাবে কিন্তু কোন সমস্যা হবেনা। ঠিক তেমনি আপনি আপনার গরুকে ছোটকাল থেকে যে যে খাবারে অভ্যস্ত করবেন ও তাতেই ফিট হয়ে যাবে। এই মাস ২ আগের কথা, সবাই শুনেছি দুধের গরুকে ভুট্টা, ছোলার ভুষি দেয়, আমিও তাই ভূট্টা কিনে যেই না খেতে দিলাম আমার গরুকে শুরু হয়ে গেল ডায়রিয়া। আবার আমার এক বড় ভাই যে কিনা খাবারের ৭০% ই ভুট্টা খাওয়ায়, কারন ভুট্টার দাম কম। বুঝেছেন তো এটা অভ্যাসের ব্যাপার। তবে হ্যা, খাবারের মান বিবেচনা করতে গেলে ভুট্টা একটা ভাল খাবার যার দাম ও কম।তাই আমি সিদ্ধান্ত  নিয়েছি অল্প অল্প করে ভুট্টা খাইয়ে আমার গরু গুলোকে  অভ্যাসে আনতে হবে। আর এভাবেই আপনি কোন খাবারের কত দাম তা বিবেচনা কতে চেষ্টা করবেন কতটা কম খরচে ভাল মানের খাবার বানানো যায়। ইদানিং এই দামের কথা বিবেচনা করে আমরা অনেকেই আরো অনেক অনেক কম দামী গো-খাদ্যের উপাদান নিয়ে কাজ শুরু করেছি। যেমন: হাইড্রোফনিক ফডার, আলফালফা, কাউপি, কটনসীড ইত্যাদি। অনেকে পুস্টিমান ধরে রাখতে গরুকে ছোট কাল থেকে বিভিন্ন সব্জি যেমন, লাউ, বরবটি, চালকুমড়া, গাজড় ইত্যাদি খাওয়াতে অভ্যস্ত করে ফেলেছে। তাই আমরা যারা নতুন ডেইরি ফার্মার, আমাদেরও ঠিক এমন একটা খাদ্যের ম্যানু ধীরে ধীরে তৈরী করে নিতে হবে যা হবে সাশ্রয়ী এবং মানসম্পন্ন। কেনা ফিড কেজি প্রতি ৩৫-৪০ টাকা দরে কিনে ৩৫ টাকা দরে দুধ বিক্রি করে ব্যবসা হবেনা, এটা আমার অভিমত।

( লেখাটি  সপ্ন ডেইরী এন্ড ফিশারিজ এর অনুমতি ক্রমে প্রকাশ করা হলো ,মেঠোপথ এর পক্ষ থেকে তাকে ধন্যবাদ  এবং আমাদের সাথেই থাকার আহ্বান জানাচ্ছি )

8126 Total Views 6 Views Today

One comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>